>> ইরাক ও সিরিয়ায় মার্কিন বিমান হামলায় নিহত আরও ৬১

কোনো ছাড় নয় আরেকটি বাংলাওয়াশের লক্ষ্যে টাইগাররা

নিউজডেস্ক, বাংলাদেশনিউজ

BD Australia mushfiqurঅষ্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে টেষ্ট সিরিজ শুরুর আগের থেকেই ২-০ ব্যবধানে সিরিজ জয়ের কথা জানিয়ে আসছিল বাংলাদেশ। ঢাকা টেষ্ট জয়ের পর সেই আত্মবিশ্বাস দ্বিগুণে পরিণত হয়েছে। সোমবার থেকে শুরু বাংলাদেশ-অষ্ট্রেলিয়ার মধ্যকার দুই ম্যাচ সিরিজের শেষ টেষ্টে বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। তবে বৃষ্টির আগমনে ম্যাচের ভাগ্য বদলাবে নাকি তা সময়ই বলে দেবে। টাইগার অধিনায়ক মুশফিকুর রহীম অবশ্য অজিদের বিপক্ষে জয় দিয়েই ২-০ তে সিরিজ জয়ের বিরল ইতিহাস গড়েই মাঠ ছাড়তে চাইছেন।

সাদা পোশাকে ফের মাঠে নামার আগে ম্যাচ পূর্ববর্তী সংবাদ সম্মেলনে মুখোমুখি মুশফিকুর রহিম। তারই চুম্বক অংশঃ

১-০ তে সিরিজে এগিয়ে বাংলাদেশ। দ্বিতীয় টেষ্টে কি ‘নিরাপদ’ ক্রিকেট খেলার কোনো পরিকল্পনা রয়েছে?
মুশফিকুর রহিম: মোটেও না। নিরাপদে যাওয়ার কোনো আশাই নেই। আগেই বলেছি, আমাদের এখানে যে দলই আসুক আমরা জয়ের জন্য খেলি। আমরা তো ইংল্যান্ডের বিপক্ষেও ফ্ল্যাট উইকেট বানিয়ে সিরিজ ড্রয়ের জন্য খেলতে পারতাম কিন্তু আমরা সেটা করিনি। আমাদের স্ট্রেংথ অনুযায়ী সেই অ্যাডভান্টেজ নিয়ে চেষ্টা করেছি ভালো ফলের জন্য। আমাদের পরিকল্পনা ও চেষ্টামাফিক ফল এসেছে। যদিও কাজটা খুব কঠিন।

তাহলে আমরা অষ্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে চট্টগ্রামেও জয়ের জন্য খেলতে নামছি?
মুশফিকুর রহিম: প্রথম টেষ্টের আগেও আমি বলেছি, আমাদের চেষ্টা থাকবে প্রতিটা ম্যাচ জয়ের। অবশ্যই ২-০ করার জন্য যা যা করা দরকার আমরা করবো। ওরা যতই আগ্রাসী ক্রিকেট খেলুক আমরা তার চেয়ে বেশি ভালো ও আগ্রাসী ক্রিকেট খেলার চেষ্টা করবো। পাল্টা-আক্রমণ করে খেলার চেষ্টা করবো। সিরিজ জিততে কোনো ছাড় দিবে না বাংলাদেশ।

দলের প্রত্যেকেই ঢাকা টেষ্ট জয়ের পর উৎফুল্ল। ছেলেদের কিভাবে চট্টগ্রাম টেষ্টেও জয় পেতে অনুপ্রাণিত করছেন?
মুশফিকুর রহিম: আমরা অবশ্যই সেরা সাফল্যের চেষ্টা করব। ছেলেদের সবাইকে একটা মেসেজ দেয়ার চেষ্টা করছি যে, এটা আমাদের একটা ফ্রেশ গেম। এটা আমাদের কতুটুক গুরুত্বপূর্ণ, সিরিজটিকে টিকিয়ে রাখার জন্য। ২-০ তে সিরিজ জয়ের জন্য ম্যাচটি গুরুত্বপূর্ণ। আমরা সেদিকে মুখিয়ে আছি। আমরা চাচ্ছি শতভাগ চেষ্টা করে ফলাফল আমাদের পক্ষে নিয়ে আসতে। ১-০ তে এগিয়ে যাওয়া অবশ্যই একটা এ্যাডভানটেজ। কিন্তু আমাদেরকে এখানে শুরু থেকেই শুরু করতে হবে।

ডেভিড ওয়ার্নার সেঞ্চুরি করেছিলেন ঢাকায়। তাকে নিয়ে আলাদা কোনো পরিকল্পনা করছেন?
মুশফিকুর রহিম: আমার মনে হয় যে কোনো দলের বিপক্ষে দ্রুত উইকেট নিতে পারাটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। আর সে (ডেভিড ওয়ার্নার) খুবই স্পেশাল খেলোয়াড়। যদিও উপমহাদেশে তার রেকর্ড খুব একটা ভালো নয়। আর গত টেষ্টের উইকেট ব্যাটিংয়ের জন্য কঠিন ছিলো। কিন্তু সে দারুণভাবে খেলেছে। আমার মনে হয় যে, ঠিক জায়গায় বোলিং করে যাওয়াটাই বড় ব্যাপার। এই পরিকল্পনা শুধু ওয়ার্নারের বিপক্ষে নয়; বরং পুরো অষ্ট্রেলিয়া দলের জন্যই আমাদের পরিকল্পনা এ রকম। আমরা যদি আমাদের কাজ ঠিকভাবে প্রয়োগ করি, আশা করি সুযোগ আসবে। আর সুযোগ এলে আমরা তা কাজে লাগানোর চেষ্টা করবো।

একজন পেসার কমিয়ে ব্যাটিং শক্তি বাড়ানোর কোনো পরিকল্পনা আছে?
মুশফিকুর রহিম: পরিকল্পনা তো অবশ্যই আছে। আমাদের যে ১৪জন আছে, সবাই কিন্তু সামর্থ্যবান। সেরা একাদশকে তিনজন পেসার নিতে পারি, চারজন স্পিনার নিতে পারি বা নয়জন ব্যাটসম্যান নিয়েও খেলতে পারি; আমাদের সব কিছুই কাভার করা আছে। কাল শেষ পর্যন্ত দেখে আমরা সিদ্ধান্ত নিবো। আমাদের দলের ১৪ জনই সেরা একাদশে খেলার জন্য উপযুক্ত। আমাদের দলের জন্য একটা স্বাস্থ্যকর প্রতিযোগিতা। কখনো এমনও হয়ে যায়, আমরা চিন্তাই পড়ে যাই, কাকে বাদ দিয়ে কাকে খেলাবো।

অষ্ট্রেলিয়া তিন স্পিনার খেলালে ব্যাটিং অর্ডারে পরিবর্তন আসবে?
মুশফিকুর রহিম: ওদের কে আসছে, সেটার উপর ডিপেন্ড করে আমাদের দল হবে। আমাদের টপ অর্ডার বা লোয়ার অর্ডার সব জায়গায় ব্যাটসম্যান আছে। সব দিকে কাভার করা আছে। তো আমরা চেষ্টা করবো ওদেরটা মাথায় রেখে দল গোছাতে। আমরা আমাদের শক্তি অনুসারে খেলব। গত টেষ্টেও আমরা আমাদের শক্তির উপর স্থির ছিলাম। আশা করি এই টেষ্টেও থাকব।

bdn24x7.com, বাংলাদেশনিউজ, এসএস, ০৩.০৯.২০১৭


Comments are closed.