>> জেএসসি ও জেডিসি পরীক্ষার ফল প্রকাশ ৩০ ডিসেম্বর : শিক্ষামন্ত্রী >> ইয়েমেনের রাজধানী সানায় আবার সৌদি বিমান হামলা নিহত ৩ >> হবিগঞ্জে ট্রাক-পিকআপ সংঘর্ষে ২ জন নিহত

দ্বিতীয় টেষ্টে মান বাঁচাতে মরিয়া অষ্ট্রেলিয়া

নিউজডেস্ক, বাংলাদেশনিউজ

BCB and CAনিজেদের ক্রিকেট ইতিহাসে এমন লজ্জার মুখোমুখি কখনও হয়নি অষ্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দল। র‍্যাংকিংয়ে নয় নম্বরের দলের বিপক্ষে কখনও হোয়াইটওয়াশের শঙ্কা চেপে ধরেনি তাদের। কিছুদিন আগেই শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে হোয়াইটওয়াশ হতে হয় বিশ্ব ক্রিকেটের অন্যতম প্রভাশালী দলটিকে। তবে সেবারও এতটা সমালোচনার মুখে পড়তে হয়নি তাদের। তবে এবার বাংলাদেশের বিপক্ষে সিরিজের প্রথম টেষ্ট হেরে দেশে-বিদেশে খুবই সমালোচিত হচ্ছেন স্মিথ-ওয়ার্নাররা। অষ্ট্রেলীয় সংবাদ মাধ্যমগুলোর কড়া সমালোচনা শুনতে হয়েছে তাদের। তাই দ্বিতীয় টেষ্ট জিতে নিজেদের মান বাঁচাতে চায় সফরকারী দলটি।

অষ্ট্রেলিয়া চট্টগ্রামে সোমবার শুরু হতে যাওয়া সিরিজের দ্বিতীয় ও শেষ ম্যাচ জিতে হৃত গৌরব কিছুটা হলেও ফিরিয়ে আনার লক্ষ্য নিয়ে মাঠে নামবে। নিজ দলের খেলোয়ারদের পারফরমেন্স সমালোচিত হচ্ছে বলে স্বীকার করেন কোচ ড্যারেন লেহম্যান। লেহম্যান সাংবাদিকদের বলেন, ‘যেভাবে সমালোচনা হচ্ছে তাতে ছেলেরা খুব কষ্ট পাচ্ছে। তবে আপনি যখন জিতবেন না তখন সমালোচনা হবেই। এটা মেনে তো নিতেই হবে। হার কেউ দেখতে চায় না। আপনি যদি অন্য দলগুলোর দিকে তাকিয়ে দেখেন, তাহলে বুঝবেন প্রতিপক্ষের মাটিতে জেতা সব সময়ই কঠিন। কোন দলের কাছে একটি টেষ্ট হারলে সমালোচনাটাই যথেষ্ট নয়। তবে বাংলাদেশ নিজ মাঠে খুবই কঠিন প্রতিপক্ষ।’

চট্টগ্রামে অষ্ট্রেলিয়া দলের অন্তত কিছু স্মরণীয় স্মৃতি রয়েছে। যে কারণে এ ম্যাচ জিতে সিরিজে সমতা আনতে চায় দলটি। সর্বশেষ ২০০৬ সালে বাংলাদেশ সফরে এই চট্টগ্রামেই নাইটওয়াচম্যান জেসন গিলেস্পির ডাবল সেঞ্চুরির সুবাদে অষ্ট্রেলিয়া ইনিংস ও ৮০ রানের বড় ব্যবধানে হারিয়েছিল বাংলাদেশকে।

তবে বাংলাদেশ এখন অনেক বেশি শক্তিশালী প্রতিপক্ষ এবং স্বাগতিক দলের স্পিনারদের মোকাবেলা করাটা হবে অষ্ট্রেলিযার জন্য কঠিন চ্যালেঞ্জ। ঢাকা টেষ্টে ২০ উইকেটের মধ্যে ১৯টিই শিকার করেছে স্পিনাররা এবং জহুর আহমেদ চৌধুরী ষ্টেডিয়ামের পিচও স্পিন সহায়ক হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

ইনজুরিতে পড়া পেসার জস হ্যাজেলউডের জায়গায় অষ্ট্রেলিয়া পুনরায় দলে ডাক পেয়েছেন বাঁ-হাতি স্পিনার ষ্টিস্টিভ ও’কেফি। দলের অপর দুই ফ্রন্ট লাইন স্পিনার নাথান লিঁও এবং এ্যাষ্টন আগারের সাথে এ ম্যাচে তাকেও খেলাতে পারে সফরকারীরা।

অষ্ট্রেলীয় গণমাধ্যমগুলো থেকে জানা যাচ্ছে, দ্বিতীয় টেষ্টের দল থেকে উসমান খাজা ও ম্যাথু ওয়েডকে বাদ দিতে পারে অষ্ট্রেলিয়া। ওয়েডের জায়গায় হ্যান্ডসকম্ব ও খাজার বদলে হিল্টন কার্টরাইটকে দলে নেওয়া হতে পারে। তেমনটার আভাস দিলেন ড্যারেন লেহম্যানও। অসি কোচ বলেন, ‘১৪ জনের দল নিয়ে আমরা বাংলাদেশে এসেছি। সিরিজের এখন যা অবস্থা তাতে করে যে কেউই মূল একাদশে থাকতে পারে।’

এ মাঠে গতবছর ইংল্যান্ডের বিপক্ষে টেষ্টেও বলতে গেলে জয়ের কাছাকাছি ছিলো বাংলাদেশ। ম্যাচের পঞ্চম দিনে দ্ইু উইকেট হাতে নিয়ে জয় থেকে ৩৩ রান দূরে ছিলো বাংলাদেশ।
বেন ষ্টোকসের শেষ দুই উইকেট শিকারের মাধ্যমে ম্যাচ জিতে সিরিজে সমতা এনেছিল ইংল্যান্ড।

bdn24x7.com, বাংলাদেশনিউজ, এসএস, ০৩.০৯.২০১৭


Comments are closed.