>> বরগুণায় সাগরে ট্রলার ডুবি ৪ জেলে উদ্ধার ৪ জন নিখোঁজ >> টেষ্ট অধিনায়কত্ব হারালেন মুশফিকুর রহিম >> নতুন টেষ্ট অধিনায়ক সাকিব আল-হাসান সহ-অধিনায়ক মাহমুদুল্লাহ

গার্লস ক্যাডেট কলেজের ছাত্রী পলিন হত্যা মামলার কার্যক্রম চলবে

নিউজডেস্ক, বাংলাদেশনিউজ

Bangladesh Supreme Court 1ময়মনসিংহ গার্লস ক্যাডেট কলেজের দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্রী শার্মিলা শাহরিন পলিন মৃত্যু মামলার বিচার কার্যক্রম বিচারিক আদালতে চলবে।

শার্মিলা শাহরিন পলিনের মামলার বিচার কার্যক্রম চলবে মর্মে হাইকোর্টের দেয়া রায় বহাল রেখেছে আপিল বিভাগ। হাইকোর্টের রায় বাতিল চেয়ে সেনা কর্মকর্তা নাজমুল হকসহ চারজনের করা আবেদন সোমবার খারিজ করে দিয়েছে আদালত।

প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার নেতৃত্বে আপিল বিভাগ বেঞ্চ সোমবার এ আদেশ দেয়। আপিল বিভাগের এ আদেশের ফলে নিম্ন আদালতে মামলার সাক্ষ্য গ্রহণে আর কোনো আইনগত বাধা থাকল না। পলিনের পক্ষে আদালতে শুনানি করেন অতিরিক্ত এটর্নি জেনারেল মুরাদ রেজা ও খন্দকার মাহবুব হোসেন। অন্যদিকে আসামিপক্ষে শুনানি করেন ব্যারিস্টার রোকন উদ্দিন মাহমুদ।

গত ৬ এপ্রিল এ সংক্রান্ত রুল খারিজ করে হাইকোর্ট নাজমুলসহ পাঁচ আসামির বিরুদ্ধে বিচারিক আদালতে মামলা চলবে বলে রায় দেয়। পরে এ রায়ের বিরুদ্ধে আপিল বিভাগে আবেদন করেন নাজমুলসহ অন্য আসামিরা।

১১ বছর আগে মারা যায় ময়মনসিংহ গার্লস ক্যাডেট কলেজের দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্রী শার্মিলা শাহরিন পলিন। ওই ঘটনায় কলেজ কর্তৃপক্ষ থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করেছিলো। কিন্তু ঘটনার ৮দিন পর পলিনের বাবা মেয়েকে হত্যা করা হয়েছে দাবি করে ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মামলা দায়ের করেন। ওই মামলার প্রেক্ষিতে ঘটনাটির বিচার বিভাগীয় তদন্তের নির্দেশ দেয় আদালত। তৎকালীন ময়মনসিংহের সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মো. আল আমিন ঘটনাটি তদন্ত করে আদালতে প্রতিবেদন দাখিল করেন।

প্রতিবেদনে বলা হয়, ক্যাডেট কলেজের মিল্ক ব্রেকের সময় ভিকটিম শার্মিলা শাহরিন পলিনের হত্যাকান্ড ঘটে এবং হত্যাকান্ডের ঘটনা ধামাচাপা দিয়ে উক্ত ঘটনা আত্মত্যা হিসেবে প্রচারের সঙ্গে জড়িত ওই কলেজের অ্যাডজুট্যান্ট মেজর নাজমুল হক, এনসিও সার্জেন্ট নওশেরুজ্জামান, সিকিউরিটি গার্ড হেনা বেগম, ক্যাডেট কলেজর ডিএএজি মেজর মুনির আহাম্মদ চৌধুরী এবং কলেজের সহযোগী অধ্যাপক আবুল হোসেন। তাদের বিরুদ্ধে দন্ডবিধির ৩০২/২০১/২০২/২০৩/৩৪ ধারায় অপরাধের সংশ্লিষ্টতার অভিযোগের আপততভাবে প্রাথমিক সত্যতা পাওয়া গেছে। ২০১৩ সালের ২২ মে এ তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করা হয়।

চলতি বছরের ৩ মার্চ ময়মনসিংহের জেলা ও দায়রা জজ আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন। এ অভিযোগ গঠনের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে হাইকোর্টে আবেদন দাখিল করেন নাজমুল হকসহ অন্যরা।

bdn24x7.com, বাংলাদেশনিউজ, এসএস, ০৫.০৬.২০১৭


Comments are closed.