>> জেএসসি ও জেডিসি পরীক্ষার ফল প্রকাশ ৩০ ডিসেম্বর : শিক্ষামন্ত্রী >> ইয়েমেনের রাজধানী সানায় আবার সৌদি বিমান হামলা নিহত ৩ >> হবিগঞ্জে ট্রাক-পিকআপ সংঘর্ষে ২ জন নিহত

আইনের ভুল ব্যাখ্যা দেবেন না : আইন মন্ত্রণালয়কে প্রধান বিচারপতি

নিউজডেস্ক, বাংলাদেশনিউজ

CJ SKS Bangladeshবাংলাদেশের প্রধান বিচারপতি এসকে সিনহা আইন মন্ত্রণালয়কে আইন না জেনে ভুল ব্যাখ্যা দেয়া থেকে বিরত থাকার পরামর্শ দিয়েছেন। বিচারকদের চাকরিবিধির গেজেট প্রকাশ নিয়ে সোমবার আপিল বিভাগের শুনানিতে সরকারের অবারো সময় চাওয়ার প্রেক্ষিতে প্রধান বিচারপতি এ মন্তব্য করেন। তিনি বলেন, নির্বাহী বিভাগের পক্ষ থেকে এমন কিছু করা উচিত হবে না, যাতে বিচার বিভাগ বিক্ষুব্ধ হয়।

অধস্তন আদালতের বিচারকদের চাকরির শৃঙ্খলা ও আচরণ সংক্রান্ত বিধিমালার গেজেট প্রকাশ আড়াই বছরের বেশি সময় ধরে আটকে থাকার পরও সরকার আবারও সময় চাওয়ায় প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বাধীন ৭জন বিচারকের আপিল বেঞ্চ উষ্মা প্রকাশ করে এবং শুনানি শেষে আরও দুই সপ্তাহ সময় দেওয়া হয়।

এসময় প্রধান বিচারপতি সুপ্রিম কোর্টের পরামর্শ ছাড়া প্রেষণে থাকা বিচারকের বিদেশযাত্রা প্রসঙ্গে সরকারের প্রধান অইন কর্মকর্তা অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলমকে বলেন, “আপনারা যদি আইন না জানেন, তাহলে আমাদের কাছে ব্যাখ্যা চাইবেন। সংবিধান অনুসারে ব্যাখ্যা আমরা দেব। নির্বাহী বিভাগ নয়।

উল্লেখ্য, নিম্ন আদালতের বিচারকদের প্রশিক্ষণ দিতে গত ২৮ র্মাচ আইন ও বিচার বিভাগের সঙ্গে অস্ট্রেলিয়ার ওয়েস্টার্ন সিডনি বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি সমঝোতা স্মারক সই হয়। এর প্রথম ধাপে প্রেষণে ১৭ জন বিচারককে বিভিন্ন মেয়াদে অস্ট্রেলিয়া পাঠানোর জন্য ৩ মে একটি অফিস আদেশ জারি করে আইন মন্ত্রণালয়।

এরপর ৯ মে ‘বিচার বিভাগীয় কর্মকর্তাদের বিদেশ গমনের ক্ষেত্রে আবশ্যিকভাবে সুপ্রিম কোর্টের পরামর্শ গ্রহণ সংক্রান্ত’ একটি সার্কুলার জারি করে সুপ্রিম কোর্ট। প্রেষণে থাকা বিচার বিভাগীয় কর্মকর্তাদের সুপ্রিম কোর্টের পরামর্শ ছাড়া বিদেশে না যেতে নির্দেশ দেওয়া হয় সেখানে। এই নির্দেশ না মানলে শৃঙ্খলা ভঙ্গের জন্য বিভাগীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে সেখানে হুঁশিয়ার করা হয়।

এরপর গত ১৬ মে আইন মন্ত্রণালয় থেকে সুপ্রিম কোর্টের রেজিস্ট্রার জেনারেলের কাছে একটি চিঠি পাঠানো হয়। রাষ্ট্রপতির অনুমোদন নিয়ে গতবছর মন্ত্রণালয় থেকে জারি করা একটি পত্রের বরাতে সেখানে বলা হয়, অধস্তন আদালতের বিচারকরা প্রেষণে থাকলে তাদের বিদেশ যাত্রার ক্ষেত্রে সুপ্রিম কোর্টের পরামর্শ নেয়ার আবশ্যকতা নেই।

এরপর সুপ্রিম কোর্ট ২৩ মে আরেকটি পরিপত্র জারি করে ওই ১৭ জনকে বিদেশ না পাঠানোর নির্দেশনাই বহাল রাখে।

সোমবারের শুনানিতে এ প্রসঙ্গে প্রধান বিচারপতি অ্যাটর্নি জেনারেলকে বলেন, “সুপ্রিম কোর্টের প্রত্যেকটা সিদ্ধান্ত সিনিয়র বিচারকরা চিন্তা করে নেয়। আপনারা বিচার বিভাগকে বিক্ষুব্ধ করবেন না।“

bdn24x7.com, বাংলাদেশনিউজ, এসএস, ২৯.০৫.২০১৭


Comments are closed.