>> জেএসসি ও জেডিসি পরীক্ষার ফল প্রকাশ ৩০ ডিসেম্বর : শিক্ষামন্ত্রী >> ইয়েমেনের রাজধানী সানায় আবার সৌদি বিমান হামলা নিহত ৩ >> হবিগঞ্জে ট্রাক-পিকআপ সংঘর্ষে ২ জন নিহত

প্রেস বিজ্ঞপ্তিঃ ‘দেবীমূর্তি স্থাপন জঘন্য ধৃষ্টতা ও সেরা তামাশা’

নিউজডেস্ক, বাংলাদেশনিউজ

Greek goddess removed from Supreme court main gate 2সূপ্রীম কোর্টের সামনের ভাস্কর্য সরানো নিয়ে প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে “শীর্ষ উলামায়ে কেরাম” এর নামে একটি বিবৃতি প্রচার করা হয়েছে রবিবার। বিবৃতিটি নিম্নরূপঃ

প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, অনতিবিলম্বে সুপ্রীম কোর্ট এনেক্স প্রাঙ্গন থেকে গ্রীকদেবীমূর্তি সরানোর জন্য জোর দাবী জানিয়েছেন দেশের শীর্ষ উলামায়ে কেরাম। তাঁরা বলেন, গ্রীক দেবীমূর্তি ন্যায় বিচারের প্রতীক মানলে মুসলমানদের ঈমান তথা মুসলমানিত্ব থাকবে না। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা ও মন্ত্রীপরিষদে সিদ্ধান্ত হওয়ার পরও এখনও উক্ত মূর্তি সাময়িক সরায়ে রেখে এনেক্স ভবনের সামনে তা পুন:স্থাপন করে মুসলিম উম্মাহকে ধোঁকা দেয়া হয়েছে। যা জঘন্য ধৃষ্টতা ও সেরা তামাশা।

প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, মূর্তি স্থাপন, মূর্তি পূজা ইসলামে চিরতরে হারাম ও জঘন্যতম শিরক। এ সত্য জানার পরও ৯৫ ভাগ মুসলমানের এদেশের সর্বোচ্চ আদালত চত্বরে মূর্তি স্থাপন করে ইসলামের দুশমনরা সরকার, দেশের বিচারব্যবস্থা ও ইসলাম-প্রিয় জনতাকে মুখোমুখী দাঁড় করাতে চায়। ইসলামের আক্বীদা ও বিশ্বাসকে সামনে রেখে সর্বোচ্চ আদলত থেকে মূর্তি অপসারণ করতেই হবে। অপসারণের ক্ষেত্রে অনমনীয় মনোভাব পোষণ করলে দেশ ক্রমশঃ দ্বন্দ্ব-কলহ, ঝগড়া-বিবাদ, দাঙ্গা-হামাঙ্গা, হানাহানি, সংঘর্ষ ও সঙ্ঘাতের দিকে যেতে পারে। দেশের পরিস্থিতি অস্থিতিশিল হয়ে উঠার আগেই এ সমস্যা সমাধানে সরকারের সজাগ দৃষ্টি রাখা উচিত বলে আমরা মনে করি। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণার পরও কোন খুঁটির জোরে ষড়যন্ত্রকারীরা মূর্তি সরিয়ে ইদুর-বিড়াল খেলায় মেতেছে তা আমাদের বোধগম্য নয়।

শীর্ষ উলামায়ে কেরাম বিবৃতিতে বলেন, মূর্তি থাকবে মন্দিরে। কোন দর্শণীয় স্থানে মূতি রাখা যাবে না। আমাদের এ প্রিয় মাতৃভূমিতে কালের পর কাল বিভিন্ন মূর্তি তাদের মন্দিরেই নিরাপদে গচ্ছিত রাখা হতো। মুসলিম উম্মাহ কোনভাবেই অন্য ধর্মের ধর্মীয় অধিকার হরণ করেনি, ভবিষ্যতেও কোনদিন করবেও না। বরং জীবন বাজী রেখে সকল ধর্মের ধর্মীয় অধিকার নিশ্চিত করতে অতন্দ্র প্রহরীর ভূমিকা পালন করবে।

বিবৃতিতে শীর্ষ উলামায়ে কেরাম আরও বলেন, মূলত: কতিপয় অশুভ শক্তি দেশকে অস্থিতিশীল করতেই মূর্তির বিষয়ে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের উপর অনৈসলামী চিন্তা-চেতনা চাপিয়ে দিতে ব্যাপক প্রভাব খাটাচ্ছে। মূর্তি স্থাপনের কারণে মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামীন ও অনুসরণীয় ব্যক্তিত্ব বিশ্বনবী রাসূলের (সা.) আদর্শবাদিতার উপর নাস্তিক্য ও পৌত্তলিকতার গভীর আঘাত করা হয়েছে। সুতরাং কারো কূপ্রভাব, প্ররোচনায় ও চোখ রাঙানো নয়, ঈমানী তাগিদেই মূর্তি অপসারণ করতে হবে। ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত সম্বলিত যে কোনো কাজ জাতিসংঘসহ সকল আন্তর্জাতিক আইনের সম্পূর্ণ পরিপন্থি। দেশে বর্তমান আইনেও এ ধরনের কাজ নিষিদ্ধ।

বিবৃতিতে তাঁরা বলেন, ২ জুন জুম্মাবার দেশের সকল মসজিদ থেকে প্রতিবাদ করার জন্য খতীবদের প্রতি আমরা আহবান জানাচ্ছি। সম্মিলিত আন্দোলনের মাধ্যমে ঈমানী ও নৈতিক অধিকার আদায় করা হবে ইনশাল্লাহ।

bdn24x7.com, বাংলাদেশনিউজ, এসএস, ২৯.০৫.২০১৭


Comments are closed.