>> কুমিল্লা বিক্টোরিয়ান্সকে হারিয়ে রংপুর রাইডার্স বিপিএল ফাইনালে >> হবিগঞ্জে ৫ জেএমবি সদস্য আটক

আমেরিকা হাইপারসোনিক মহাকাশ বিমান তৈরীর কাজ শুরু করল

নিউজডেস্ক, বাংলাদেশনিউজ

US Hypersonic space plane 2চীন ও রাশিয়ার পর তৃতীয় দেশ হিসেবে আমেরিকা হাইপারসোনিক (আতি উচ্চ গতির) মহাকাশ বিমান তৈরীর কাজ শুরু করেছে। এ প্রকল্পের দায়িত্ব পেয়েছে ডিফেন্স এ্যাডভাণ্সড রিসার্চ প্রজেক্টস এজেন্সী (ডারপা-DARPA) এবং বোয়িং কোম্পানী।

পেন্টাগনের গবেষণা ও উন্নয়ন এজেন্সী ঘোষণা করেছে যে, তারা সম্পূর্ণ নতুন শ্রেণীর একটি হাইপারসোনিক বিমান তৈরীর খুব কাছাকাছি পৌঁছেছে, যে বিমান ২০২০ সালের মধ্যে তাদের অধিকতর স্বল্প খরচে এবং নির্ভরযোগ্য চালকবিহীন/স্বয়ংচালিত মহাকাশ ভ্রমণের ক্ষেত্রে বিরাট সুযোগ করে দেবে।

বলা হয়েছে, বোয়িং কোম্পানী পরীক্ষামূলক মহাকাশ বিমান (XS-1) প্রকল্পের পরবর্তী ধাপের কাজ অব্যাহত রাখবে। এ প্রকল্পের লক্ষ্য হচ্ছে এমন একটি স্বয়ংচালিত মহাকাশ বিমান তৈরী করা যেটি ১০ দিনে ১০ বার মহাকাশে যাতায়াত করতে পারে।

এক্সএস-১ মহাকাশ বিমানটি সনাতন ধরণের বিমানও হবে না, আবার প্রথাগত উৎক্ষেপক যানও হবে না, বরং এটি ঐ দুই ধরণের বিমান একটি মিশেল হবে।

US Hypersonic space planeমোটামুটিভাবে পরিকল্পিত বিমানটি আকার ও ওজনে একটি বাণিজ্যিক জেট বিমানের সমান হবে এবং এই মহাকাশ বিমানের নাম হবে ফ্যান্টম এক্সপ্রেস। এটি খাড়াভাবে আকাশে উঠতে পারবে এবং হাইপারসোনিক (আতি উচ্চ গতি) গতিতে চলবে।

চীনের প্রথম হাইপরসোনিক মহাকাশ বিমানটির গতি ছিল শব্দের গতির ৮ গুণ (Mach 8) এবং রাশিয়ার তৈরী সর্বশেষ হাইপরসোনিক বিমানটির গতি শব্দের গতির ১০ গুণ (Mach 10)। কিন্তু আমেরিকার পরিকল্পিত মহাকাশ বিমানের গতি কতটা হবে সে সম্পর্কে এখনই কিছু বলা হয় নি।

bdn24x7.com, বাংলাদেশনিউজ, এসএস, ২৮.০৫.২০১৭


Comments are closed.