>> কোথাও কোথাও মাঝারি ধরণের ভারী থেকে ভারী বর্ষণ হতে পারে >> স্পেনের বার্সেলোনায় পথচারীদের উপর ভ্যান নিহত ১৩ আহত ৫০ >> সিরিয়ায় মার্কিন জোটের বিমান হামলায় ৬ বেসামরিক ব্যক্তি নিহত

“হাওড়” শব্দ প্রসঙ্গে

শরীফ এ কাফী

Sharif-Kafi-June-16-111ছোটবেলা পাঠ্য বাইয়ে একটি প্রবন্ধ পড়েছিলাম লোকসাহিত্য, লোকসৃংস্কৃতি বিষয়ে। কার লেখা মনে নেই (ড. মুহম্মদ শহীদুল্লাহ সাহেবের হতে পারে)। সে প্রবন্ধের মধ্যে ময়মনসিংহ গীতিকা’র উলেখ ছিল। সেই সাথে একটি প্রবচন ছিলঃ

‘হাওড় জঙ্গল মোষের শিং
এই তিনে ময়মনসিং’

তখন থেকেই জানি, হাওড় শব্দটির বানানের শেষ অক্ষরটি “ড়”। হাওড়, হাবড়,  ভড় এসব শব্দ জলাভূমি সম্পর্কিত শব্দ। কিন্তু বিগত শতাব্দীর নয় দশকের মাঝামাঝি সময় থেকে হাওড় শবাদটির শেষের “ড়” অক্ষরটি “র” দ্বারা প্রতিস্থাপিত হয়ে “হাওর” হয়ে যেতে শুরু করে। এখন তো প্রায় সর্বত্র “হাওর”ই চলছে। কার দ্বারা, কী ভাবে, কবে থেকে “হাওড়” শব্দটি রূপান্তরিত হয়ে “হাওর” হয়েছে তা হয়তো খুঁজে পাওয়া যাবে না।

বাংলাদেশের ৬৪ জেলায় বাংলা ভাষার বহু শব্দের পৃথক পৃথক আঞ্চলিক উচ্চারণ রীতি আছে। কিন্তু সে সমস্ত আঞ্চলিক উচ্চারণ রীতি দ্বারা লিখিত বাংলায় শব্দের বানান প্রভাবিত বা পরিবর্তিত হয় না।

তবে অনুমান করি এটা সরকারের কথিত বাংলাদেশী কন্সাল্ট্যান্ট নামক উপদেষ্টাদের কাজ। বিগত আড়াই তিন দশকে সরকারের বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের অধীনে বিভিন্ন প্রকল্পে হাজার হাজার বাংলাদেশী উপদেষ্টা কাজ করেছে। এদের মধ্যে কয়েক শত কাজ করেছে, নদী, চর, জলাভূমি, হাওড়-বাওড় নিয়ে। সরকারী প্রকল্পের, বিশেষ করে বিদেশী দাতা সাহায্যপ্রাপ্ত প্রকল্পের, সকল কাগজপত্র ইংরেজী ভাষায় লেখা হয়। সঙ্গত কারণেই “হাওড়” সংক্রান্ত প্রকল্পের কাগজপত্রে “হাওড়”কে ইংরেজীতে Haor লেখা হয়েছে। পরে আবার শব্দটির বাংলা রূপ ব্যবহার করতে গিয়ে “হাওর” ব্যবহার করা হয়েছে। কারণ, বেশীরভাগ কন্সাল্ট্যান্ট বা উপদেষ্টাদের চরিত্র হ’ল, তারা কিছু জানতে চেষ্টা করেন না, নিজেরা যেটা বুঝেন সেটাই চালিয়ে দেন। কারণ, তা চলেও যায়। কেউ চ্যালেঞ্জ করে না। “হাওড়” শব্দটি এদেরই কারণে দুর্দশায় পড়ে “হাওর” এ রূপান্তরিত হয়ে থাকবে।

কিন্তু আমরা সকলে হাওড় শব্দটির সঠিক বানান ফিরিয়ে আনতে পারি নিজেরা প্রচলন ও ব্যবহারিক প্রয়োগের মাধ্যমে। বিশেষ করে গণমাধ্যকর্মীরা একটি বড় ভূমিকা পালন করতে পারেন।

বাংলাদেশনিউজ
২৮.০৪.২০১৭


Comments are closed.