>> এইচএসসি পরীক্ষার ফল প্রধানমন্ত্রীর কাছে হস্তান্তর পাশের হার ৬৮.৯১

ব্যর্থ হল মঙ্গল গবেষণার মহা পরিকল্পানা

নিউজডেস্ক, বাংলাদেশনিউজ

exo-mars-2016শেষ পর্যন্ত মঙ্গল গবেষণার মেগা প্রজেক্ট “স্কিয়াপারেল্লি মার্স ল্যান্ডার প্রকল্প”টি ব্যর্থ হল। সৌরজগতে ৫০ কোটি কিলোমিটার পথ পাড়ি দিয়ে ল্যান্ডারটি মঙ্গলের কক্ষপথে প্রবেশ করেছিল এবং বায়ৃমণ্ডলেও ঢুঁকে পড়েছিল। কিন্তু সেই বায়ুমণ্ডলে ঢুঁকার পর আর খোঁজ নেই।

মঙ্গলের মাটি থেকে তখন তার অবস্থান মাত্র এক মিনিটের উচ্চতায়। ইউরোপিয়ান স্পেস এজেন্সি (ইএসএ)-তে তখন সিগন্যাল স্ক্রিনের দিকে নিষ্পলক চোখে চেয়ে রয়েছেন বিজ্ঞানীরা। আর কিছুক্ষণ পরই মঙ্গলের মাটি স্পর্শ করবে স্কিয়াপারেল্লি মার্স ল্যান্ডার। কিন্তু লাল গ্রহের মাটি ছোঁয়ার আগ-মুহূর্তেই ধ্বংস হয়ে গেল স্কিয়াপারেল্লি মার্স ল্যান্ডার।

এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে ইএসএ-র স্পেসক্র্যাফ্ট অপারেশন ম্যানেজার অ্যান্ড্রি অ্যাকোমাজো জানান, মঙ্গলের মাটি থেকে ঠিক এক কিলোমিটার উপরেও সিগন্যাল ছিল। তখনও স্পেস ল্যান্ডার ঠিকঠাক কাজ করছিল। কিন্তু মাটি স্পর্শ করা থেকে মাত্র ১ মিনিট আগে আচমকাই সিগন্যাল বন্ধ হয়ে গেল। তার পর থেকে আর ‘ট্র্যাক’ করা যাচ্ছে না স্পেস ল্যান্ডারটিকে।

mars-landerবিজ্ঞানীদের অনুমান, সেটি ধ্বংস হয়ে গিয়েছে। কিন্তু সিগন্যাল না পাওয়ায় কী ভাবে এই ঘটনা ঘটল আর ঠিক কোন জায়গাতে ঘটেছে তা বোঝা যাচ্ছে না। তবে এমনটা যে হতে পারে তা মঙ্গলের কক্ষপথে স্পেস ল্যান্ডার পা দেওয়ার সাথেই আন্দাজ করতে পেরেছিলেন ইএসএ-র বিজ্ঞানীরা। কারণ, মঙ্গলের আবহাওয়ায় যেমনটা কাজ করার কথা ছিল ল্যান্ডারটির, প্রথম থেকেই সেভাবে কাজ করতে পাছিল না। এছাড়া নামার জন্য প্যারাস্যুট খুললেও, ভূমি স্পর্শের আগে পরিকল্পনামত প্যাাস্যুটটি ল্যাণ্ডার থেকে বিচ্ছিন্ন হয়নি।

মঙ্গলে প্রাণের সন্ধানে দীর্ঘ দিন ধরেই সেখানে মহাকাশযান পাঠাচ্ছেন বিজ্ঞানীরা। মিথেন গ্যাসের অস্তিত্ব সন্ধানে লাল মাটি খুঁড়ে নিয়ে আসা হচ্ছে পৃথিবীতে। অবশ্য স্কিয়াপারেল্লি মার্স ল্যান্ডারের উদ্দেশ্য ছিল এক নতুন প্রযুক্তিকে মঙ্গলের পরিবেশে প্রবেশ করানো। স্কিয়াপারেল্লি মার্স ল্যান্ডার বয়ে নিয়ে গিয়েছিল ২ মিটার লম্বা ড্রিল মেশিন। প্রাণের সন্ধানে সেখানে মাটি খুঁড়তে সাহায্য করত এই ড্রিল। বিজ্ঞানীদের আশা ছিল, অভিযান সফল হলে, মঙ্গল গবেষণায় নতুন দিগন্ত উন্মোচিত হবে। কিন্তু তার আগেই ধ্বংস হয়ে গেল যানটি।

ইতালির মহাকাশচারী জিওভ্যান্নি স্কিয়াপারেল্লি নামে এই যানটির নাম রাখা হয়েছিল এবং গত রবিবার এটা উৎক্ষেপণ করা হয়েছিল।

স্কিয়াপারেল্লি মার্স ল্যান্ডার প্রকল্পটি ইউরোপিয়ান স্পেস এজেন্সি (ESA) এবং রাশিয়ার মহাকাশ সংস্থা রোসোকসমস-(Rosocosmos)-এর একটি যৌথ প্রকল্প।

bdn24x7.com, বাংলাদেশনিউজ, এসএস, জের, ২১.১০.২০১৬


Comments are closed.