>> জেএসসি ও জেডিসি পরীক্ষার ফল প্রকাশ ৩০ ডিসেম্বর : শিক্ষামন্ত্রী >> ইয়েমেনের রাজধানী সানায় আবার সৌদি বিমান হামলা নিহত ৩ >> হবিগঞ্জে ট্রাক-পিকআপ সংঘর্ষে ২ জন নিহত

কর্মক্ষেত্রে শ্রমিকের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে মালিকদের প্রতি আহবান

নিউজডেস্ক, বাংলাদেশনিউজ

mujibul-haqueকর্মক্ষেত্রে শ্রমিকের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে মালিক ও এমপ্লয়ার্স ফেডারেশনের সদস্যদের আরো বেশি যতত্নবান ও সচেতন হওয়ার আহবান জানিয়েছেন শ্রম প্রতিমন্ত্রী মুজিবুল হক চুন্নু।

তিনি বলেন, ‘দেশে ৮৩ লাখ শিল্প ইউনিটের জন্য মাত্র আড়াইশ’ শ্রম পরিদর্শক রয়েছে। অল্প সংখ্যক পরিদর্শক দিয়ে এতো বেশি কারখানা পরিদর্শন ও নিরাপত্তা বিধান করা সম্ভব নয়, যদি মালিকরা সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের নিরাপত্তার বিষয়ে সচেতন না হন। মালিকরা সচেতন না হলে প্রশিক্ষণ, ওয়ার্কশপ, সেমিনার যাই করা হোক, কোন কিছুই কাজে আসবে না। আর এ ক্ষেত্রে এমপ্লয়ার্স এসোসিয়েশনের সদস্যদেরও ভূমিকা রাখতে হবে।’

প্রতিমন্ত্রী রবিবার মেট্রোপলিটন চেম্বার মিলনায়তনে ‘কর্মক্ষেত্রে স্বাস্থ্য সেফটি ব্যবস্থাপনা’ প্রকল্পের তৃতীয় পর্যায়ের কার্যক্রম উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতা করছিলেন।

বাংলাদেশ এমপ্লয়ার্স ফেডারেশনের মহাসচিব ফারুক আহমেদের পরিচালনায় অনুষ্ঠানে আরো বক্তৃতা করেন ঢাকাস্থ কানাডিয়ান হাই কমিশনার বিনায়ত-পিয়ারে ল্যারামী, বিজিএমইএ’র সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান, বিকেএমইএ’র সহ-সভাপতি মনসুর আহমেদ, আইএলও’র আরএমজি প্রজেক্ট প্রোগ্রামের প্রধান কারিগরি উপদেষ্টা টুমু পউশেনেইন, আইএলও’র আবাসিক প্রতিনিধি শ্রীনিবাস বি. রেড্ডি ও বাংলাদেশ এমপ্লয়ার্স ফেডারেশনের সহ-সভাপতি গোলাম মইনুদ্দিন।

ঝুঁকিপূর্ণ কাজে শিশুদের নিয়োগ না দেয়ার আহবান জানিয়ে শ্রম প্রতিমন্ত্রী বলেন, ২০২১ সালের মধ্যে বাংলাদেশ মধ্যম আয়ে পৌঁছবে। ওই সময়ের মধ্যে বাংলাদেশে ঝুঁকিপূর্ণ শিশু শ্রম নিরসন করার লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছে। এ ব্যাপারে তিনি সকলের সহযোগিতা কামনা করেন।

শ্রম আইন অনুযায়ী সকল শিল্প প্রতিষ্ঠানের মালিক, যারা আয়কর রিটার্নে মুনাফা ঘোষণা করবেন তার অর্জিত মুনাফার ৫ শতাংশ শ্রমিক কল্যাণ ফান্ডে জমা দেয়া বাধ্যতামূলক উল্লেখ করে তিনি বলেন, যদি সকল শিল্প মালিক তাদের মুনাফার ৫ শতাংশ সঠিকভাবে শ্রমিক কল্যাণ ফান্ডে জমা দেয় তাহলে সকল শ্রমিকের জন্য প্রভিডেন্ট ফান্ড ও ইন্সুরেন্স সুবিধা নিশ্চিত করা সম্ভব। আর তখন একেকজন শ্রমিক অবসরে গেলে বা মৃত্যুবরণ করলে কমপক্ষে ৫ লাখ টাকার সুবিধা পাবে।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, সরকারের প্রচেষ্টা এবং মালিকদের সচেতনতার ফলে শ্রমিক কল্যাণ ফান্ডের পরিমান ৩৫ লাখ টাকা থেকে বর্তমানে ১৮০ কোটি টাকায় উন্নীত হয়েছে।

অনুষ্ঠানে জানানো হয়, ‘কর্মক্ষেত্রে স্বাস্থ্য নিরাপত্তা ব্যবস্থাপনা’ প্রকল্পের তৃতীয় পর্যায়ের আওতায় প্রায় ৮ লাখ শ্রমজীবী মানুষকে প্রশিক্ষণ প্রদান করা হবে।

bdn24x7.com, বাংলাদেশনিউজ, এসএস, জের, ০৯.১০.২০১৬


Comments are closed.