>> শনিবার সকালে উত্তর কোরিয়া আবার ব্যালিষ্টিক ক্ষেপণাস্ত্রের পরীক্ষা চালিয়েছে >> পরস্পর আন্তঃসংঘর্ষে সিরিয়ায় পূর্ব দামেস্কে ৪০ সন্ত্রাসী নিহত >> মিয়ানমারের দক্ষিণপূর্বাঞ্চলে বাস দুর্ঘটনায় নিহত ১৯ আহত ২১ >> রাজধানী ঢাকায় ট্রাকচাপায় ২ জন নিহত >> আখাউাড়ায় ট্রাকচাপায় নিহত ১ আহত ৩ >> মাগুরায় সড়ক দুর্ঘটনায় এক মোটর সাইকেল আরোহী নিহত

এ ক্ষেত্রে মোবাইল কোর্ট বসিয়ে দ্রুত শাস্তি নিশ্চিত করা উচিৎ

BDN Editorialমাদ্রাসা শিক্ষক কর্তৃক মাদ্রাসা ছাত্র বালকদের যৌন উৎপীড়নের সংবাদ মাঝে মাঝেই পাওয়া যায়। আজও যেমন সাতক্ষীরা ইটাগাছার এক মাদ্রাসা শিক্ষক এক শিশু ছাত্রকে যৌন উৎপীড়নের চেষ্টা করলে, শিশুটির চিৎকারে আশ-পাশের মানুষ ছুটে এস শিশুটিকে উদ্ধার করেছে এবং শিক্ষককে গণধোলাই দিয়ে পুলিশে দিয়েছে।

এসব ঘটনায় নিয়মিত মামলায় শাস্তি সহজে হয় না, যদি কখনও শাস্তি হয়ও, তা ছয় মাস, এক বছরের বেশী নয়। তারপর আছে কোর্টে দৌড়াদৌড়ির হয়রানী। এছাড়া দেশের বিচার বিভাগের মামলা জটের কারনে আছে বিচার প্রক্রিয়ার দীর্ঘসূত্রিতা।

আমরা মনে করি এসব ক্ষেত্রে অপরাধীকে প্রশসনিক ম্যাজিষ্ট্রেটের সামনে হাজির করে, মোবাইল কোর্ট বসিয়ে, তাঁর ক্ষমতার মধ্যে সর্বোচ্চ (সম্ভবতঃ দুই বছর) শাস্তি দিয়ে সাথে সাথে জেলখানায় পাঠিয়ে দেয়া উচিৎ। আমাদের ধারণা, মেয়েদের যৌন হয়রানী করলে যদি মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে ব্যবস্থা নেয়া যায়, তাহলে এ ক্ষেত্রেও কোন বাধা নেই।

একই রকম ঘটনার ক্ষেত্রে আইন প্রয়োগকারী সংস্থা এবং ম্থানীয় প্রশাসন বিষয়টি গুরুত্বের সাথে বিবেচনায় নিবেন এটাই আমাদের প্রত্যাশা।

বাংলাদেশনিউজ
২১.০৮.২০১৫


Comments are closed.