>> বরগুণায় সাগরে ট্রলার ডুবি ৪ জেলে উদ্ধার ৪ জন নিখোঁজ >> টেষ্ট অধিনায়কত্ব হারালেন মুশফিকুর রহিম >> নতুন টেষ্ট অধিনায়ক সাকিব আল-হাসান সহ-অধিনায়ক মাহমুদুল্লাহ

গ্রন্থমেলার ২১তম দিনে পাঠক দর্শকের বাঁধ ভাঙ্গা জোয়ার

নিউজডেস্ক, বাংলাদেশনিউজ

Boi Mela 1শনিবার মহান শহীদ বিস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে ছিল অমর একুশে গ্রন্থমেলার ২১তম দিন। মহান একুশে ফেব্রুয়ারি, এই দিনে ভাষার জন্য প্রাণ উৎসর্গ করে ইতিহাসে চূড়ান্ত অধ্যয় রচনা করেছিল বাংলার দামাল ছেলেরা। সেই ভাষা শহিদদের প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধা ও ভালবাসার পর বইমেলায় ঢল নামে বইপ্রেমী দর্শকদের। শনিবার সকালে এ ঢল আছড়ে পড়ে বইমেলার মূল প্রাঙ্গণ বাংলা একাডেমি চত্বর ও সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে।

সকাল ৮টা থেকেই উন্মুক্ত করে দেয়া হয় বইমেলার দুয়ার। নানা বয়সী পাঠক-দর্শনার্থীর উপচে পড়া ভিড়ে বইমেলার আসল চিত্র ফুটে ওঠে। সকাল থেকে সন্ধ্যার পর পর্যন্ত দেখা যায় বাঙালির প্রাণোচ্ছ্বাসের উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত।

তবে মেলায় বইক্রেতা পাঠকের চেয়ে দর্শনার্থীদের ভিড় বেশি বলে অনেক বিক্রেতাই মন্তব্য করেছেন। তবে তারা স্বীকার করেছেন- অন্যদিনের তুলনায় এদিন ক্রেতাদের বাড়তি উপস্থিতিও চোখে পড়ার মতো। নানা স্টল ঘুরে ঘুরে তারা পছন্দ করেছেন প্রিয় লেখকের বই। এছাড়া নতুন লেখকদের বইও কিনতে দেখা গেছে তাদের।

মেলার মূল অংশ সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে হলেও অধিকাংশ শিশুতোষগ্রন্থের প্রকাশনীগুলো একাডেমির প্রাঙ্গণেই রাখা হয়েছে। সেজন্য পরিবারের ছোট ছোট বাচ্চারাও বড়দের সাথে ভিড় জমিয়েছে বাংলা একাডেমির প্রাঙ্গণে। সোহরাওয়ার্দীতেও সাজানো ছিলো ছোট-বড় সব বয়সী বইয়ের প্রকাশনাগুলো।

Book Fair 121কয়েক জন প্রকাশক বলেন, অন্যদিনের তুলনায় এদিন তাদের বেচা-বিক্রি ছিল বেশ ভাল। ছোটদের বই বিক্রির পাশাপাশি প্রেমের উপন্যাস ও কবিতার বেশ চাহিদা ছিল। তরুণ পাঠকের অনেকে পছন্দ মতো প্রেমের কবিতা কিনেছেন। সব মিলিয়ে এদিন বইমেলা যেন তার প্রকৃত চেহার ফিরে পেয়েছিল।

মেলায় জোটবন্ধ তরুণ দর্শনার্থীরা জানান, ‘একুশে ফেব্রুয়ারি উপলক্ষে তারা আজ প্রথম মেলায় এসেছেন। রাজনৈতিক অস্থিরতার কারণে ইচ্ছে থাকলেও তারা মেলায় আসতে পারেননি। তবে একুশে ফেব্রুয়ারি বলে কথা। বন্ধুদের উচ্ছ্বাসে একাকার হয়ে চলে এসেছেন তাদের প্রিয় গ্রন্থমেলার প্রশান্তির আঙিনায়।

রং-তুলির ছোঁয়ায় পাঠক দর্শকরা শরীরে শরীরে অঙ্কন করেছেন বাংলা বর্ণমালা; কেউবা শুধুই ২১। কারো কারো টি-শার্টের বুক বরাবর ছিল ভাষাশহীদ সালাম, বরকত, রফিক, জব্বার, শফিউরের প্রতিকৃতি।

এর থেকে বাদ যায়নি ছোট ছোট শিশুরাও। তাদের গালে-কপালে আঁকা ছিল জাতীয় পতাকা ও শহীদ মিনারের প্রতীক। এমন চিত্রই ছিল ২১ ফেব্রুয়ারির অমর একুশে গ্রন্থমেলায়।

দর্শনার্থীদের মধ্যে একুশের সাজে সজ্জিত ছিলেন অনেকেই। বাহারি কাপড়, কালো শাড়ি, পাঞ্জাবি ও ফতুয়া পরেও এসেছিলেন অনেক নারী-পুরুষ।

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের জনস্রোতের ঢেউ লেগেছিল অমর একুশে গ্রন্থ মেলায়। শনিবার বিকেলে বই মেলায় বইপ্রেমী পাঠকদের তিঁলধারণের ছিলো না মেলা প্রাঙ্গণে ছাড়িয়ে আশপাশের সড়ক পর্যন্ত। সকাল ৮টায় বইমেলার দুয়ার খোলা হলেও এর ঘণ্টাখানেকের মধ্যেই বাংলা একাডেমি এবং সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে ছিল লাখো মানুষের পদচারণা। কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে প্রভাতফেরি শেষে জনতার একাংশ আসে বইমেলার দিকে। বেলা গড়াতেই বইপ্রেমীদের পদভারে মুখরিত হয়ে ওঠে বইমেলা প্রাঙ্গণ। বেলা যতো বাড়তে থাকে মেলায় প্রবেশের জন্য লাইন দীর্ঘ থেকে দীর্ঘতর হতে থাকে।

Book Fairদু’টি প্রবেশপথে দু’টি করে চারটি সারিতে প্রবেশ করতে দেওয়া হয়। দক্ষিণ দিকের লাইন দোয়েল চত্বর পর্যন্ত আর উত্তর দিকের লাইন চারুকলা পর্যন্ত ছিল। দীর্ঘ লাইনে দাঁড়িয়েইমানুষ প্রাণের এ মেলায় প্রবেশ করেছেন।

মানুষের বাঁধভাঙা প্রাণের জোয়ার প্রমাণ করেছে, একুশ এবং একুশে বইমেলা তাদের জীবনে কখনও ম্লান হওয়ার নয়।

এদিন বাংলা একাডেমি চত্বরের বাইরে আশপাশের এলাকাজুড়ে বসেছিল বারোয়ারি মেলা। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসের বিভিন্ন রাস্তাজুড়ে চুড়ি, ফিতা, খেলনাপাতি, মাটির দ্রব্য আর নানা রকম মণ্ডা-মিঠাইয়ের পসরা সাজিয়ে মেলা জমিয়েছিলেন বিক্রেতারা।

শনিবার সকাল ৮টায় সর্বসাধারণের জন্য খোলা হয় বইমেলার দুয়ার, চলে রাত ৯টা পর্য্যন্ত।

অমর একুশে উপলক্ষে বাংলা একাডেমির আয়োজনে সকাল সাড়ে ৭টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত বিরতিহীনভাবে চলে স্বরচিত কবিতা পাঠের আসর। সভাপতিত্ব করেন কবি অসীম সাহা।

বাংলা একাডেমি প্রাঙ্গণের মেলামঞ্চে বিকেলে ‘ভদ্রলোক-রাজনীতি ও শ্রেণিচেতনার আলোকে ভাষা-আন্দোলন’ শীর্ষক একুশে স্মারক বক্তব্য রাখবেন ভাষাসংগ্রামী আহমদ রফিক।

সভাপতিত্ব করবেন একাডেমির সভাপতি ইমিরেটাস অধ্যাপক ড. আনিসুজ্জামান।

সন্ধ্যায় মেলামঞ্চে অনুষ্ঠিত হয় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।

bdn24x7.com, বাংলাদেশনিউজ, এসএস, জের, ২২.০২.২০১৫


Comments are closed.