>> জেএসসি ও জেডিসি পরীক্ষার ফল প্রকাশ ৩০ ডিসেম্বর : শিক্ষামন্ত্রী >> ইয়েমেনের রাজধানী সানায় আবার সৌদি বিমান হামলা নিহত ৩ >> হবিগঞ্জে ট্রাক-পিকআপ সংঘর্ষে ২ জন নিহত

৭ দফা দিয়ে কাজ হবে না : মায়া

নিউজডেস্ক, বাংলাদেশনিউজ

Mayaবিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া দেশে একটি নতুন নির্বাচনের লক্ষ্যে যে সাত দফা প্রস্তাব দিয়েছেন তা প্রত্যাখ্যান করেছে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ।

বৃহস্পতিবার সকালে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে হরতালবিরোধী সমাবেশে ঢাকা মহানগর কমিটির সাধারণ সম্পাদক ও ত্রাণমন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া বলেন, “সাত দফা দিয়ে কাজ হবে না। এক দফা মেনেই ২০১৯ সালে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে নির্বাচনে আসতে হবে। এর থেকে পিছু হটার কোনো সম্ভাবনা নেই।”

তিনি দাবি করেন, “বিএনপির যে সকল নেতা দলের ধ্বংসাত্মক কার্যকলাপ পছন্দ করেন না তারা গোপনে আমাদের সঙ্গে যোগাযোগ করছে। আমরা তাদের আমলনামা দেখছি। যাদেরকে আমরা ভালো মনে করব তাদেরকে নিতে পারি।”

আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির এই সদস্য বলেন, “খালেদা জিয়ার সঙ্গে কোনো ভালো নেতা থাকবে না। থাকবে সন্ত্রাসী, জঙ্গিবাদী ও চোর-ডাকাতরা।”

জামায়াতের সমালোচনা করে মায়া বলেন, “আগে দেখতাম কুকুর মানুষকে কামড় দিত। এখন দেখছি জামায়াত-শিবির মানুষকে কামড় দিচ্ছে। এ ধরনের হিংস্র, বর্বরতার নেতৃত্বে আছেন খালেদা জিয়া। মানুষ কামড়ে দিয়ে প্রতিহিংসা ও বর্বরতার রাজনীতি দিয়ে ক্ষমতায় আসা যাবে না।”

বুধবার সন্ধ্যা সাতটায় গুলশান কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া সরকারের প্রতি নির্বাচনের আহ্বান জানিয়ে সাত দফা প্রস্তাব দেন।

সাত দফায় খালেদা জিয়া বলেন, জাতীয় সংসদের নির্বাচন অবশ্যই একটি নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে অনুষ্ঠিত হতে হবে। গ্রহণযোগ্য, নিরপেক্ষ, দক্ষ, যোগ্য ও সৎ ব্যক্তিদের সমন্বয়ে নির্বাচন কমিশন পুনর্গঠন করতে হবে। খালেদা জিয়া বলেন, নির্বাচনের তারিখ ঘোষণার সঙ্গে সঙ্গে জাতীয় সংসদ ও মন্ত্রিসভা বিলুপ্ত হবে। আর নির্বাচনের তারিখ ঘোষণার পরপরই বেসামরিক প্রশাসনের সহায়তায় ম্যাজিস্ট্রেসি ক্ষমতা দিয়ে সারা দেশে সশস্ত্র বাহিনীর সদস্যদের মোতায়েন করতে হবে। নির্বাচনী প্রচারাভিযান শুরুর আগেই চিহ্নিত সন্ত্রাসীদের গ্রেফতার ও অবৈধ অস্ত্র উদ্ধারে বিশেষ অভিযান পরিচালনা করতে হবে।

সব রাজনৈতিক বন্দীর মুক্তির দাবি জানিয়ে বিএনপির চেয়ারপারসন বলেন, রাজনৈতিক নেতা-কর্মীদের বিরুদ্ধে দায়ের করা মিথ্যা ও হয়রানিমূলক মামলা প্রত্যাহার করতে হবে। এ ছাড়া সাত দফায় বর্তমান সরকারের আমলে বন্ধ করে দেয়া সব সংবাদপত্র ও স্যাটেলাইট টেলিভিশন চ্যানেল খুলে দেয়ারও দাবি জানান তিনি। খালেদা জিয়া মাহমুদুর রহমানসহ আটক সব সাংবাদিকের মুক্তির দাবি জানান।

bdn24x7.com, বাংলাদেশনিউজ, এসএস, জের, ০১.০১.২০১৫


Comments are closed.