>> ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে ৬০ কিলোমিটার যানজট >> লিবিয়ায় জাহাজের কন্টেইনার থেকে ১৩ অভিবাসন প্রত্যাশীর লাশ উদ্ধার >> টাঙ্গাইল মির্জাপুরে গরু ব্যবসায়ীকে কুপিয়ে হত্যা

আমেরিকার সহযোগিতায় তুরস্ক সিরিয়ার জঙ্গীদের সামরিক প্রশিক্ষণ দেবে

নিউজডেস্ক, বাংলাদেশনিউজ

America supported Syrian rebelতুরস্ক সরকার আনুষ্ঠানিকভাবে সিরিয়ার সরকার বিরোধী কথিত মধ্যপন্থী সশস্ত্র গ্রুপগুলোকে সামরিক প্রশিক্ষণ দেয়ার কথা স্বীকার করেছে। তুর্কি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে মার্কিন সেনাবাহিনীর সহযোগিতায় সিরিয়ার সরকার বিরোধী প্রায় দুই হাজার লোককে সামরিক প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।

সিরিয়ার উগ্র তাকফিরি জঙ্গীরা তুরস্ক সীমান্তবর্তী কয়েক মাইল এলাকা জুড়ে অবস্থান করছে এবং এসব জঙ্গী তুরস্কের নিরাপত্তার জন্যও হুমকি হয়ে দাঁড়িয়েছে। তুরস্ক সরকার এমন সময় আইএসআইএল বিরোধী আন্তর্জাতিক সামরিক জোটকে সহযোগিতা করার জন্য শর্ত হিসেবে সিরিয়া সরকারকে উৎখাত করার দাবি জানিয়েছে যখন দেশটি কুর্দি এলাকার স্বায়ত্বশাসন দেয়ার বিষয়ে মারাত্মক চ্যালেঞ্জের মুখে পড়েছে। এ কারণে তুরস্ক সরকার দেশের অভ্যন্তরে কুর্দিদের তৎপরতা নিয়ন্ত্রণ করার জন্য কুর্দি পিকেকে গেরিলাদের সঙ্গে শান্তি আলোচনা অব্যাহত রাখার চেষ্টা করছে।

তবে কুর্দিরা বলেছে, আইএসআইএল জঙ্গীদের হামলার হাত থেকে সিরিয়ার কুর্দি অধ্যুষিত কুবানি শহর রক্ষা করতে তুরস্ক সরকার গড়িমসি করায় তারা সরকারের সঙ্গে শান্তি আলোচনা বন্ধ করে দেয়ার হুমকি দিয়েছে এবং এ হুমকি তুরস্ক সরকারের জন্য বিরাট চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে। বিষয়টি সরকারের জন্য এ কারণে মাথাব্যথার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে যে, কুর্দিদের সঙ্গে আলোচনা বন্ধ হয়ে গেলে একদিকে যেমন সহিংসতা অব্যাহত থাকবে অন্যদিকে ইউরোপীয় ইউনিয়নে তুরস্কের অন্তর্ভুক্তির জন্য আলোচনা প্রক্রিয়াও বাধাগ্রস্ত হবে।

অবশ্য তুরস্ক সরকার আইএসআইএল’র হামলা থেকে কুবানি শহরকে রক্ষার জন্য কেন গড়িমসি করেছে তার কিছু ব্যাখ্যা তুলে ধরেছে। তুরস্কের কর্মকর্তারা বলেছেন, কুবানি পিকেকে গেরিদের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে এবং কুবানির কুর্দিরা সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট বাশার আল আসাদকে সহযোগিতা করছে। এ ছাড়া, সিরিয়ার কুর্দিরা সীমিত পরিসরে যে স্বায়ত্বশাসন ভোগ করছে তাতে তুরস্ক সরকার আতঙ্কিত। কারণ এর ফলে তুরস্কের কুর্দিরাও একই ধরণের স্বায়ত্বশাসন দাবি করার সুযোগ পাবে।

কিন্তু তারপরও তুরস্ক সরকার সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট বাশার আল আসাদের পতন ঘটানোর শর্তে আইএসআইএলকে দমনে সহযোগিতা করার কথা বলেছে। মার্কিন দৈনিক নিউইয়র্ক টাইমস তুরস্ক সরকারের এ নীতিকে অত্যন্ত বিপদজনক বলে অভিহিত করেছে। দৈনিকটি মন্তব্য করেছে, এমন একটি দেশ তার দীর্ঘ মেয়াদি লক্ষ্য বাস্তবায়নের চেষ্টা করছে যে কিনা এ অঞ্চলে শান্তি ও স্থিতিশীলতা প্রতিষ্ঠার দাবি করছে।

এর আগে তুরস্কের কর্মকর্তারা আইএসআইএল জঙ্গীদের সমর্থনে অনেক পদক্ষেপ নিয়েছেন। যদিও আঙ্কারা আইএসআইএল’র প্রতি তাদের সমর্থনের বিষয়টি অস্বীকার করেছেন কিন্তু দেশটির সরকার বিরোধীরা বলছেন, এই জঙ্গী গোষ্ঠীর প্রতি তুরস্ক সরকারের সমর্থনের বহু প্রমাণ তাদের কাছে রয়েছে।

যাইহোক, আঙ্কারা এখন মধ্যপন্থী অভিহিত করে সিরিয়ার জঙ্গীদের প্রতি সমর্থন জানিয়ে বলেছে, উগ্র গোষ্ঠীগুলোর প্রতি আস্থা রাখা যায় না। মোটকথা মধ্যপন্থী হোক কিংবা উগ্রপন্থী হোক জঙ্গীদের প্রতি সমর্থন দেয়া থেকে তুরস্ক সরকার এখনো সরে আসেনি অথচ তারা সন্ত্রাসবাদ দমনের দাবি করে করছে।

bdn24x7.com, বাংলাদেশনিউজ, এসএস, জের, ২৭.১১.২০১৪


Comments are closed.