>> ইরাক ও সিরিয়ায় মার্কিন বিমান হামলায় নিহত আরও ৬১

তাদের সারা জীবনের জন্য শিক্ষক পেশা থেকে বহিস্কার করা উচিৎ

BDN Editorialগণমাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদে জানা গেছে লালমনিরহাট হাতীবান্ধায় এসএসসি পরীক্ষায় এক মেধাবী ছাত্রীর মারাত্মক ফল বিপর্যয় ঘটেছে। এ বিষয়ে দিনাজপুর শিক্ষা বোর্ডের পক্ষ থেকে একটি উচ্চ ক্ষমতা সম্পন্ন তদন্ত দল তদন্ত করতে গিয়ে জানতে পারেন, হাতীবান্ধা আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রের সচিব, সহকারী কেন্দ্র সচিব ও পরীক্ষা পরিচালনা কমিটির যোগসাজসে ওই পরীক্ষার্থীর সমূহ ক্ষতি করা হয়েছে। তদন্ত এখনও অব্যাহত রয়েছে। তবে একটি বিশ্বস্ত সূত্রে জানা গেছে কেন্দ্রের সচিব, সহকারী কেন্দ্র সচিব ও পরীক্ষা পরিচালনা কমিটির কতিপয় সদস্য অসৎ উদ্দেশ্যে পরস্পর যোগসাজশের মাধ্যমে পরীক্ষার্থীর প্রতিদিনের উত্তরপত্রে কারসাজি করে তার এতবড় ক্ষতি করেছে।

পরীক্ষার্থীর স্কুল কর্তপক্ষ গণমাধ্যমকে জানান, ওই পরীক্ষার্থী ১ম থেকে ১০ম শ্রেণী পর্যন্ত প্রথম স্থান অধিকারী একজন কৃতি শিক্ষার্থী। সে পিএসসি ও জেএসসি পরীক্ষায় গোল্ডেন এ প্লাস পেয়ে জেলায় প্রথম হয়। এসএসসি টেস্ট পরীক্ষায় তার ফলাফল ছিল গোল্ডেন এ প্লাস। গণিত অলিম্পিয়াডেও জেলা চ্যাম্পিয়ন হয় ওই শিক্ষার্থী। শিক্ষা জীবনে প্রতিটি ক্লাসে প্রথম স্থান অধিকার করা ওই মেধাবি শিক্ষার্থী কেন্দ্র কর্তৃপক্ষের কারসাজির ফলে এসএসসি পরীক্ষায় এ প্লাসই পায়নি।

দিনাজপুর শিক্ষা বোর্ড অবশ্য ত্রুটিমুক্ত ভাবে পরীক্ষা অনুষ্ঠিত না হওয়ায় জেএসসি ও এসএসসি উভয় পরীক্ষার জন্য হাতীবান্ধা আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্র স্থগিত ঘোষণা করেছে। আমরা মনে করি এটাই যথেষ্ট নয়। অপরাধীরা একটি মেধাকে হত্যা করেছে, যা নরহত্যার মতই জঘন্য অপরাধ। শিক্ষকতার পেশায় নিয়োজিত থেকে এতবড় ঘৃণ্য অপরাধ যারা করতে পারে কোন ভাবেই তাদের শিক্ষকতা পেশায় যুক্ত থাকার অধিকার নেই। চাকুরীচ্যুতিসহ তাদের সারা জীবনের জন্য শিক্ষক পেশা থেকে বহিস্কার করা উচিৎ এবং তাদের বিরুদ্ধে ফৌজদারী মামলা দায়ের করে উপযুক্ত শাস্তি বিধান করা উচিৎ।

বাংলাদেশনিউজ
২২.০৯.২০১৪


Comments are closed.