>> ইরাক ও সিরিয়ায় মার্কিন বিমান হামলায় নিহত আরও ৬১

জয়দ্রথ কিংবা আমি

সুমন রহমান
moon imagination

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

এসব প্রশ্নের তাপমাত্রা ছিল হিমাঙ্কের অনেক নিচে
খুব ক্যাজুয়াল, কোনো জলদি নাই, যেন নিরবধি—
যেন কারো অন্তেষ্টিক্রিয়ায় যাচ্ছে মধ্যরাতের নদী
পাঁচমিশালী ধারাস্রোতের দোটানাসহ।

আলোকসজ্জার নৈশ অনুরোধ ঠেলে যেতে মন কি তার একদম সরছে না?
নাকি ভুলে গেছে, পাহাড়ের বেণী খুলবার দিনে সেও ক্রন্দনশীলা পথ—

আর জয়দ্রথ
কিংবা আমি
এসে বসলাম পা ডুবিয়ে— ইউরিয়া ফ্যাক্টরির সবুজ বিষ্ঠা মিশছে
ঘুমন্ত ইলিশের ফুলকায়
তবু গুনগুনিয়ে যাচ্ছে নদী, যেন ওর গানের ভেতর ইলিশের
বোকা বোকা শ্বাসকষ্ট আছে। সহজ মরণ আছে।

নদীকে বললাম আমার নানাবিধ পদ্যসম্ভাবনার কথা
এক বালিকার খেয়ালখুশির ভেতর তীব্র বেদনারাশিসমেত
লতিয়ে উঠতো ওরা—
যাকে আমি লুকিয়ে রেখেছিলাম ওর সহচরীদের কাছ থেকে
আগলে রেখেছিলাম পৃথিবীর সবাইকে তস্কর ভেবে

বলতে ইচ্ছা করছে— তাকে হারিয়ে ফেলেছি, অথবা তাকে
কোনোদিনই পাইনি
তাকে আমি একদম বুঝি নি, সেও আমাকে নয়
আমি হয়তো তাকে একদিন বুঝে উঠতে পারবো, কিন্তু সে আমাকে
কোনোদিনও বুঝবে না

একটি নিঃসঙ্গ জেলেনৌকার আলোয় আমার চোখ
ঝাপসা হয়ে আসছে
নদী বইছে ধীরে, সপ্রতিভ উপেক্ষার অল্প অল্প ঘূর্ণি ওর গায়ে
যেন আমি যে গল্পটি বলছি সেটি বহুবার তার বহুজন থেকে শোনা
যেন তার তীরে তীরে পুনরাবৃত্তি বোনা

যেন কোনো উচ্চাভিলাষী শহরের পাশ দিয়ে
একবারও বয়ে না-গিয়ে
আমার বুঝবারই কথা নয় দাম্পত্য কাকে বলে;
যেন আমার সম্ভাব্য কবিতা
ঐ উঠতি শহরের পয়ঃনিষ্কাশনের মতই
একপেশে একটি বধির ব্যবস্থামাত্র!

সমবেত স্নান শেষে শ্রমিকদের হল্লা মিলিয়ে যাচ্ছে দূরে
ছুটি চেয়ে বড় বড় শ্বাস ফেলছে ঘাটগুলো, যেন আমি উঠে গেলেই
একযোগে নাইতে নামবে—
সারাদিন ক্লান্তি আর লোহার অ্যাংকারের খামচিগুলোতে ব্যান্ডেজ বেঁধে
ঘুমাতে যাবে তারা।

বাংলাদেশনিউজ২৪x৭.কম
১৫.০১.২০১৪


Comments are closed.