>> এইচএসসি পরীক্ষার ফল প্রধানমন্ত্রীর কাছে হস্তান্তর পাশের হার ৬৮.৯১

এগিয়ে যাও বাংলাদেশ

সাইফুল আলম চৌধুরী

Saiful alam Chowdhury 1বিশ্বের গার্মেন্টস সেক্টরে বাংলাদেশের একটা শক্তিশালি অবস্থান আছে তা আজ আর কারও অজানা নয়। আমেরিকা আর ইয়োরোপের বাজারে গার্মেন্টস সেক্টর ছাড়াও প্রায় সব সেক্টরেই চীনের আধিপত্য প্রায় একচেটিয়া। ইলেক্ট্রোনিক্স, লেদার প্রডাক্ট, ম্যাশিনারিজ, কসমেটিক্স ইত্যাদি সব বড় কম্পানিই তাদের প্রডাক্ট চীন থেকে তৈরী করে আনে।

ছুটির দিনগুলোতে অবসরে আমি বিভিন্ন শপিং মলে স্বপরিবারে কিংবা একাকি ঘুরে বেড়াই । কখনও সখনও শপিং করা হয়, কখনওবা উইন্ডো শপিং । উইন্ডো শপিং এ বেশ মজা আছে। বিশাল স্পেসের এইসব স্টোর গুলোতে কাপড়চোপড় খোলামেলা সাজান থাকে যেটা ইচ্ছে ধরে নাড়িয়ে চাড়িয়ে গায়েদিয়ে পরে দেখি। মনে মনে দু একটা পছন্দ করে দীর্ঘ সময় কাটিয়ে বাসায় ফিরি। সময়টা বেশ কেটে যায় । এভাবে ঘুরে ঘুরে জামা কাপড়ের ট্যাগ দেখি । লেখা দেখি মেইড ইন চায়না, মেইড ইন ইন্ডিয়া, দেখি মেইড টার্কি, মেইড ইন ভিয়েতনাম আরও কত নাম কিন্তু তারও চেয়ে বেশী দেখি মেইড ইন বাংলাদেশ লেখা । বস্তুত এই নামটা দেখার জন্যেই সব পোশাকের গায়ের ট্যাগ উল্টিয়ে উল্টিয়ে দেখি আর মনের মধ্যে একটা গর্ব অনুভব করি।

মেসি’স আমেরিকায় একটা মিডিয়াম হাই এন্ডের রিটেইল চেইন স্টোর । মুলত ক্লথিং স্টোর। কিন্তু ওদের রয়েছে কসমেটিক্স, পারফিঊম, ক্রোকারিজ এবং জুতার প্রায় সব রকম ব্রান্ডের কালেকশন। বিশাল নেটওয়ার্ক । প্রায় সব শপিং মলগুলোতেই ওদের শোরুম আছে। আছে নিজস্ব কাস্টমার সার্কেল । ওয়ালমার্ট বা টার্গেট থেকে ভালো কোয়ালিটির পন্য বিক্রয় করে ওরা । মেসি’স থেকে মাঝে মাঝে জুতাও কিনি আমরা । তাই সেদিন জুতা ঘাটতে ঘাটতে একটা সুন্দর ‘ড্রেস সু’ উল্টিয়ে দেখি মেইড ইন বাংলাদেশ লেখা। অবাক হয়ে তাকিয়ে থাকলাম কিছুক্ষণ। চোখে পানি আসার মত অবস্থা। আহ বাংলাদেশ থেকে এখন আর শুধু পোশাক নয় জুতাও আসছে আমেরিকার মত মার্কেটে এবং তাও খুব ভাল কোয়ালিটির জুতা। ভাবতেই গর্বে মনটা কেমন জানি ভরে যায়। গরীব দেশ বলে মনের মধ্যে একধরনের হীনমন্যতা কাজ করত একসময় । অথচ আজ ঘুরতে ফিরতে আমার দেশের নাম দেখা যায় পৃথিবীর সব উন্নত ধনী দেশের শপিং মলগুলোতে।

এগিয়ে যাও বাংলাদেশ আরও এগিয়ে যাও। আমার সোনার বাংলা আমি তোমায় ভালবাসি।।

-লেখাটি আজই ফেসবুকে প্রকাশিত

বাংলাদেশনিউজ২৪x৭.কম
১৩.০১.২০১৪


Comments are closed.